রবীন্দ্রনাথের চিত্রশিল্প

রবীন্দ্রনাথের সাহিত্যসৃষ্টি রবীন্দ্রবিদূষণের অসঙ্গত আঘাত থেকে রক্ষা পায়নি, এ বিষয়ে তাঁর ছবির ভাগ্য অনেক বেশি মন্দ । অন্যদিকে তাঁর ছবির চরিত্র নিয়েও নানা মুনির নানা মত । কারো মতো তিনি অভিব্যক্তিবাদী, ক্বচিত কারো ভাষ্যে প্রতিবাদী । বিশিষ্ট কারো ভাষ্যে তিনি ছবি আঁকায় বিমূর্তবাদী বা নব্য প্রাচীনতাবাদী ( নিও প্রিমিটিজম ) ।
উইলিয়াম আর্চার বা কুমারস্বামী থেকে মূলকরাজ আনন্দের মতো বহুজনার বিচিত্র মন্তব্যে রবীন্দ্রচিত্রকলা জটিল বিতর্কে বিদ্ধ । রবীন্দ্রচিত্রের কোনো কোনো ফর্মে চিত্ররসিক কেউ দেখেছেন তাঁর অবদমিত বাসনার প্রতিফলন, কেউ বা দেখেছেন আদিমচেতনা বা স্বত:স্ফূর্ত শিশু সারল্যের প্রকাশ । রবীন্দ্রনাথ লাল রঙ দেখতে পেতেন না -তাই নিয়ে কেতকী কুশারী ডাইসন ও সুশোভন অধিকারী উচ্চগ্রামে বিতর্ক তুলেছেন । তেমনি রেখা ও রঙের প্রাধান্য নিয়েও চলেছে বিতর্ক ।
 এসব বিতর্কের পরিপ্রেক্ষিতে রবীন্দ্রনাথের ছবি আঁকার উৎস, সূচনা ও চরিত্র নিয়ে আলোচনা রয়েছে এ বইতে এবং তা বিশ্বচিত্রকলার অতি সংক্ষেপিত ইতিহাসের পটভূমিতে । ১৯২৯ খ্রিস্টাব্দে জন্ম প্রাবন্ধিক, কবি ও কলামিষ্ট হিসাবে খ্যাত আহমদ রফিক বাহান্নর ভাষা আন্দোলনের অন্যতম একজন সংগঠক । রবীন্দ্র গবেষক মানুষটি বাংলাদেশে রবীন্দ্রচর্চা কেন্দ্র ট্রাস্টের প্রতিষ্ঠাতা। সাহিত্যক্ষেত্রে বিশেষ অবদানের জন্য অসংখ্য পুরস্কারের পাশাপাশি ১৯৯৫ সালে তিনি রাষ্ট্রীয় পুরস্কার একুশে পদক আর কলকাতার টেগোর রিসার্চ ইনস্টিটিউট থেকে পেয়েছেন 'রবীন্দ্রত্ত্বাচার্য ' উপাধি ও স্বদেশে রবীন্দ্র পুরস্কার (১৪১৮ বঙ্গাব্দ) । পাঠক এই বইতে তাঁর লেখায় রবীন্দ্রচিত্রকলার স্বরূপ সম্বন্ধে নির্দিষ্ট ধারণা পাবেন । বুঝে নিতে পারবেন রবীন্দ্রচিত্র-সৃষ্টি রবীন্দ্র ঘরানারই অন্তর্ভুক্ত ।